মেকআপ থেকেও হতে পারে ক্যান্সার

* অনেক ক্ষেত্রে দেখা যায় এসব মেকআপ উপকরণের যতœ নেওয়ার পদ্ধতি আমাদের জানা থাকে না। ফলে আমাদের নানা অসতর্কতায় ত্বকে যেকোনো ইনফেকশন হতে পারে। আসুন জেনে নেই এসব উপকরণের যতœআত্তির কিছু টিপস্ ।

১. মেকআপসামগ্রী কেনার সময় খেয়াল রাখবেন তা যেন বায়ুনিরোধক পাত্রে থাকে। বিশেষ করে আইলাইনার, নেইল পলিশ, লিপগ্লোস, মাশকারা ইত্যাদি। এ ধরনের তরল মেকআপ প্রসাধনগুলো ব্যবহারের সময় শিশিটি ঢেকে রাখুন। তা না হলে বাতাসে এর ভেতরের তরল উড়ে গিয়ে প্রসাধনগুলোকে ব্যবহারের অনুপযোগী করে তোলে।
২. এ ধরনের তরল প্রসাধনসামগ্রী খুব বেশি রোদ বা বাতাস আসে এমন স্থানে না রেখে ঠান্ডা জায়গায় রাখলে দীর্ঘদিন ভালো থাকে।
৩. অনেক সময় লিপলাইনার ব্যবহারের ক্ষেত্রে দেখা যায়, আমরা লিপলাইনারের ঢাকনা খুলে ফেলে দিই। লিপলাইনার পেনসিলটি খোলা থাকার কারনে এর মুখে ধুলাবালি লেগে যাওয়ার পর ব্যবহারের সময় ঠোঁটে ছোট ছোট ফুসকুড়ির সৃষ্টি হয়। তাই শুধু লিপলাইনারই নয়, কাজল ব্যবহারের পরও এর মুখের ঢাকনা লাগিয়ে রাখুন।
৪. ফেস পাউডার কেনার সময় ছোট বক্স কেনাই ভালো। কারন বড় বক্সে দীর্ঘদিন থাকার কারনে পাউডার জমাট বেঁধে যায়।
৫. লিপস্টিকটি যদি ক্রিমের মতো হয়ে থাকে, তবে তা ফ্রিজে রাখতে হবে। ম্যাট লিপস্টিক হলে ঠান্ডা স্থানে রাখলেই তা ভালো থাকে। অনেক লিপস্টিকে তুলি দেওয়া থাকে। লিপগ্লোস ও লিপস্টিক দেওয়ার পর তুলিটি টিস্যু দিয়ে ভালো করে মুছে রাখুন। না হলে তুলিতে ছত্রাকের সংক্রমণ হতে পারে।
৬. মেকআপের পাফ সপ্তাহে অন্তত একদিন গরম পানিতে ধুয়ে নিন।
৭. কন্ডিশনার, ময়েশ্চারাইজার ফাউন্ডেশন, কনসিলার ব্যবহারের সময় বেশি করে হাতের তালুতে নিলে তা পুনরায় আবার একই টিউব বোতলে ঢুকিয়ে না রেখে আলাদা পাত্রে রাখুন।
৮. ইষঁংয-ড়হ দিয়ে মেকআপ করার পর তা ধুয়ে শুকিয়ে টিস্যুতে পেঁচিয়ে রাখুন।
৯. অনেক সময় মেকআপের প্রসাধনসামগ্রী মুখে লাগানোর জন্য পাসটিকে ভিজিয়ে নেওয়া হয়। সে ক্ষেত্রে ভেজা পাফটি ব্যবহারের পর তা পুনরায় ধুয়ে আবার শুকিয়ে টিস্যু পেপার দিয়ে পেঁচিয়ে রাখুন।
১০. রিমুভার খুব তাড়াতাড়ি শুকিয়ে যায়। তাই রিমুভার ব্যবহারের সময় এর শিশিটি ঢেকে ব্যবহার করুন। রিমুভারের গায়ে মেয়াদ উত্তীর্ণের তারিখ দেওয়া থাকেনা। তাই রিমুভার খুব বেশি না কিনে এক বছরের ব্যবহার উপযোগী শিশি কেনাই ভলো।

মেকআপ ব্যবহারে এসব সচেতনতা তো আছেই, এছাড়া মেকআপ ব্যবহারে যে বিষয়টি সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ তা হলো একই মেকআপ প্রসাধন যেন একাধিক মানুষ ব্যবহার না করে। এ বিষয়ে জনৈক রূপ জানান, মুখের ত্বক এমনিতেই স্পর্শকাতর। আর মেকআপ করার কারনে ত্বকের কোষ বন্ধ হয়ে টক্সিন বের হতে পারে না। ফলে ত্বকের কিছুটা ক্ষতি হলেও বিশেষ যতœ নিলে সেই সমস্যা দূর হয়ে যায়। কিন্তু একই লিপগ্লোস. পাফ, ব্লুসার, লিপস্টিক মেকআপ বক্স ব্যবহারের কারনে বিভিন্ন ধরনের চর্মরোগের সংক্রামণ হয়, যার স্থায়ী নিরাময় করা কষ্টকর হয়ে যায়।

এ প্রসাধন ব্যবহারে সবাইকে সতর্ক হতে হবে। যাতে প্রসাধন অন্য কেউ ব্যবহার না করে। এছাড়া মেকআপ কেনার সময় তা ভালো ব্র্যান্ডের কি না দেখে নিন। অনেকেই মেয়দ উত্তীর্ণ হয়ে গেলেও মেকআপ সামগ্রী ব্যবহার করে থাকেন। মেয়াদ উত্তীর্ণ সামগ্রী কখনোই ব্যবহার করবেন না। এতে ত্বকে চর্মরোগ, ফুসকুড়ি, এমনকি ক্যানসার পর্যন্ত হতে পারে।





Updated: May 29, 2015 — 1:45 pm
bangladeshi women's lifestyle © 2015-2016, ই-মেইলঃ bdnari.com@gmail.com Serverdokan TEAM