উচ্চ রক্তচাপ নিয়ন্ত্রন করবে লাল আলু

Red-Pontiac-SP_1012

* উচ্চ রক্তচাপকে এক ধরনের নীরব ঘাতক বলা যায়। খুব সহজেই মাপা যায় রক্তচাপ। বহু মানুষকে অকাল মৃত্যুর হাত থেকে রক্ষা করা যায়। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার তথ্য অনুযায়ী, প্রতি বছর সারা বিশ্বে ৯৪ লাখ মানুষ হার্ট অ্যাটাক ও স্ট্রোকে মারা যায়। আর মূলত হয়ে থাকে উচ্চ রক্তচাপের কারনে। এ ব্যাধিগুলো এখন ইউরোপের সীমানা ছাড়িয়ে আফ্রিকা ও এশিয়ায় বিস্তৃত হচ্ছে।

ডাব্লিউএইচও’র তথ্য অনুযায়ী, ৪৬ শতাংশ আফ্রিকান ৬০ বছর বয়স হওয়ার আগেই হৃদযন্ত্রের অসুখ বিসুখে মারা যায়। শিল্পোন্নত অনেক দেশে অকাল মৃত্যুর জন্য মূলত হার্ট ও মস্তিষ্কের রোগ ব্যধি দায়ী। উচ্চ রক্তচাপের মতো উপসর্গগুলোই এর মূল কারণ। কারো দেহে উচ্চ রক্তচাপ শনাক্ত করা হলেই যে তিনি ধীরে ধীরে মৃত্যুমুখে পড়বেন তা নয়। সঠিক সময় এটি ধরা পড়লে এর চিকিৎসা সম্ভব।

উন্নত দেশগুলোতে লোকজন নিয়মিত ডাক্তারের কাছে চিকিৎসা ও চেকআপের জন্য যান। স্বাস্থ্য বীমা এসব খরচ বহন করে। উচ্চ রক্তচাপ ধরা পড়লে সাথে সাথে এর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া যায়। কিন্তু দরিদ্র দেশগুলোতে স্বাস্থ্য বীমার তেমন কোনো ব্যবস্থা নেই। চিকিৎসা ও চেকআপের খরচ রোগদেরই দিতে হয়। তাই অনেকেই কঠিন কোনো উপসর্গ না থাকলে ডাক্তার দেখাতে চান না। ফলে উচ্চ রক্তচাপের মতো রোগ ধরা পরে না।

ডাব্লিউএইচও’র প্রধান মার্গারেট চ্যান সর্তক করে বলেন, ‘সাধারণত উচ্চ রক্তচাপ বহু বছর ধরে থাকলেও কোনো লক্ষন প্রকাশ পায় না। এর মাত্রা অত্যন্ত উঁচু হলেও ভুক্তভোগীরা তা বুঝতে পারে না। বিশ্বব্যাপী দশ বিলিয়ন মানুষ উচ্চ রক্তচাপে ভুগছেন। ধারনা করা হয় এই সংখ্যা আরো বেশি হবে।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা এর কারন হিসাবে অস্বাস্থ্যকর জীবনযাত্রাই দায়ী বলে মনে করে। খাবারে অতিরিক্ত লবণ, মদ্যপান, ধূমপান, আলস্য ইত্যাদি উচ্চরক্তচাপের পথকে প্রশস্ত করে। নগরায়নের সাথে সাথে মানুষের জীবনযাত্রারও পরিবর্তন হচ্ছে। আগে মানুষের খাদ্যাভ্যাস যেমনটি ছিল অনেক দেশে তারও পরিবর্তন ঘটেছে। আগে কায়িক পরিশ্রমেও অভ্যস্ত ছিলেন তারা। আজকাল স্যুপ ও বিভিন্ন খাবারে বেশি লবণ ব্যবহার করা হচ্ছে। কায়িক পরিশমেও অনীহা লক্ষ্য করা যায়। আর এসবই উচ্চ রক্তচাপকে প্রভাবিত করে।

কম লবণ, বেশি ফলমূল ও তরিতরকারি এবং হাঁটাচলা এই কয়েকটি দিকে লক্ষ্য রাখলেই উচ্চ রক্তচাপকে আয়ত্তে আনা যায়।

লাল আলু যেভাবে উচ্চ রক্তচাপ নিয়ন্ত্রন করে :

আলু নিয়ে অভিযোগের শেষ নেই। আলু সুগার বাড়ায়, মোটা করে দেয়। এমন কত কী আলু নিয়ে প্রচার রয়েছে। কিন্তু সম্প্রতি আমেরিকার পেনসিলভেনিয়ায় বিশ্ববিদ্যালয় গবেষকরা আলু নিয়ে ঠিক উলটো কথাই বলেছেন।

তাদের মতে, উচ্চ রক্তচাপ কমাতে আলু দারুন কাজে আসে। তবে তা অবশ্য লাল আলু। পেনসিলভেনিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের বিজ্ঞানী অধ্যাপক জো ভিনসন লাল আলুর রক্তচাপ কমানোকে একেবারে হাতেনাতে প্রমাণ করে দেখালেন।

তিনি আরো জানান, আলু খেলে মোটা হয়ে যাওয়ার যে ধারণা আছে তা ঠিক নয়। লাল আলুর পুষ্টিকর দিক নিয়েও বিস্তর গবেষণা করেছেন এই বিজ্ঞানী। দুই মাস ধরে চলে এই গবেষণাটি। এরপরই গবেষণায় তথ্যকে জনসমক্ষে এনেছেন অধ্যাপক ভিনসন।

নানা ওজনের মানুষদের নিয়ে ওই গবেষণা করা হয়েছে। এদের মধ্যে অতিরিক্ত ওজনের মানুষজনও ছিলেন। দিনে দুবার করে এক মাস ধরে খোসাসহ লাল আলু খেতে দেয়া হয়েছিল। দেখা গেছে, স্থুল ব্যক্তিদের ক্ষেত্রেও ডায়াস্টোলিক ব্লাডপ্রেসার পাঁচ শতাংশ হারে কমে গেছে। সিস্টোলিক প্রেসার কমেছে চার শতাংশ। আরো দেখা গেছে এক নাগাড়ে লাল আলু খেলেও কারোরই বাড়েনি ওজন।

এখন সাধারণ সাদা আলু নিয়ে গবেষণায় নামছেন বিজ্ঞানীরা। অধ্যাপক ভিনসনের ধারনা লাল আলুর মতো একই ফল মিলবে সাদা আলুতে। গবেষণায় লাল আলুর পুষ্টিগুণ বারবার যাচাই করে দেখেছেন বিজ্ঞানীরা। জানা গেছে, লাল আলুতে যেমন রয়েছে ভিটামিন, তেমনি রয়েছে রকমারি ফাইটোকেমিক্যালস।

আলুকে সবজি হিসাবে খাওযার বদলে সেদ্ধ করে খাওয়াটা ভলো। ভাজা আলু খাওয়া কোনমতেই ভালো না। তেলে ভাজলে বা বেশি আঁচে রান্না করলেই আলুর গুণাগুণ নষ্ট হয়ে যায়। তখন আলুতে স্টার্চ আর ফ্যাট ছাড়া আর কিছু থাকে না।

আলুর গুণাগুণ নিয়ে কথা বলতে গিয়ে অধ্যাপক জো ভিনসন আরো জানান, মুখোরোচক আলুর চিপসে লাভের থেকে ক্ষতিই হয় বেশি। ওজন কমার বদলে চিপস ওজন বাড়িয়ে দেয়। রক্তচাপ কমারও কোনো সম্ভাবনা থাকে না।

Updated: July 27, 2015 — 2:56 pm
bangladeshi women's lifestyle © 2015-2016, ই-মেইলঃ bdnari.com@gmail.com Serverdokan TEAM