ভবিষ্যতে গ্রিন হাউস গ্যাস নিঃসরণে মূল হাতিয়ার হতে পারে ছত্রাক!

bdnari00046* গ্রিন হাউস গ্যাস বা কার্বন ডাইঅক্সাইড গ্যাসের নিঃসরণ কমানোর জন্য অদূর ভবিষ্যতে মানুষের মূল হাতিয়ার হতে পারে ছত্রাক! আরো নির্দিষ্টভাবে বলতে গেলে মাশরুম। সম্প্রতি বিজ্ঞান সাময়িকী ‘নেচার’ এ প্রকাশিত এক গবেষণা প্রবন্ধে বলা হয়, common ectomycorrhizal (EEM) ছত্রাক, যেটা থেকে খাবার উপযোগী মাশরুম উৎপন্ন হয়, তারা বিভিন্ন বস্তু ক্ষয়ের ফলে উৎপন্ন কার্বন ডাই অক্সাইড গ্যাসের বায়ুমণ্ডলে নিঃসরণের হার কমিয়ে দেয়।

টেক্সাস ও বোস্টন বিশ্ববিদ্যালয় এবং স্মিথসোনিয়ান ট্রপিক্যাল রিসার্চ ইন্সটিটিউটের গবেষকরা আবিষ্কার করলেন যে, এ মাশরুমগুলো কার্বন ডাই-অক্সাইডকে মাটিতে আটকে রাখে, বাতাসে মুক্ত হতে দেয় না। সাধারণভাবে, গাছ কার্বন ডাই-অক্সাইড ধরে রাখে, কিন্তু যখন তারা মারা যায়, সেই কার্বন ডাই অক্সাইড মাটির সাথে মিশে যায়। পুরো পৃথিবীতেই মাটি হচ্ছে কার্বন ডাইঅক্সাইডের সবচেয়ে বড় সংরক্ষণাগার। মাটিতে বসবাসকারী বিভিন্ন অণুজীবের মাধ্যমে যখন মৃত গাছগুলো পচে মাটিতে মিশে যেতে শুরু করে। এর ফলে গাছের দেহে থাকা কার্বন ডাইঅক্সাইড প্রথমে মাটিতে যায়, এরপর বাতাসে মুক্ত হয়। আর এ কার্বন ডাই অক্সাইড বায়ুমণ্ডলে কার্বন ডাইঅক্সাইডের হার বাড়িয়ে দেয়, যার ফলে বেড়ে যায় বায়ুমণ্ডলের উষ্ণতা।

আর ঠিক এসময়ে আবির্ভাব ঘটে EEM ছত্রাকের। যেসব অণুজীব উদ্ভিদের দেহাবশেষকে মাটিতে পচিয়ে ফেলে, তাদের নিজেদের বেঁচে থাকার জন্য মাটি থেকে নাইট্রোজেন সংগ্রহ করতে হয়। EEM ছত্রাক মূলত উদ্ভিদের শিকড়ে বাস করে ও নাইট্রোজেনের জন্য এসব অণুজীবের সাথে প্রতিযোগিতা করে এবং বেশিরভাগ নাইট্রোজেন গ্রহণ করে নেয়। একইসাথে এ ছত্রাকগুলো আবার নাইট্রোজেনের রূপান্তর ঘটায়, যাতে এগুলো যে গাছের শিকড়ে বাস করে, সে গাছগুলোও পুষ্টি উপাদান হিসেবে নাইট্রোজেন গ্রহণ করতে পারে। এছাড়া এ ছত্রাকগুলো গাছের ক্ষয় বা পচন কমিয়ে দিয়ে গাছকে রক্ষা করে, কমিয়ে দেয় কার্বন ডাইঅক্সাইড গ্যাস নিঃসরণের হার। শুধু তাই নয়, ছত্রাক মাটিতে কার্বনের পরিমাণ প্রায় ৭০ ভাগ পর্যন্ত পরিবর্তিত করে দিতে পারে।

Updated: March 1, 2016 — 2:23 pm
bangladeshi women's lifestyle © 2015-2016, ই-মেইলঃ bdnari.com@gmail.com Serverdokan TEAM