ভয়াবহ যৌনরোগ ‘জেনিটাল হার্পিস’, কেন হয় এই রোগ?

bdna444123সাম্প্রতিক সময়ে জেনিটাল হার্পিস একটি ভয়াবহ যৌনরোগ। এটি যেকোন বয়সে যেকোন সময়ে হতে পারে। এ রোগেরবাহক হার্পিস সিমপ্লেক্স ভাইরাস Type 1 (HSV-1) Or Type 2 (HSV-2)। এর মধ্যে HSV-2 বেশি করে (প্রায় ৬০%)।

                                     যেসব অবস্থায় সহবাস আপনাকে ফেলতে পারে কঠিন বিপদে!

এ রোগটি সাধারণত অশিক্ষিত এবং গরিব জনগোষ্ঠী, যাদের একাধিক সেক্স পার্টনার থাক এবং যৌনকর্মীদের হয়ে থাকে। এ রোগ সাধারণত আক্রান্ত ব্যাক্তির চামড়ায় সরাসরি স্পর্শ করলে, আক্রান্ত ব্যাক্তিকে চুমু খেলে, আক্রান্ত ব্যাক্তির সাথে যৌনমিলন করলে হয়ে থাকে। নিম্নে এ রোগ সম্পর্কে বর্ণনা করা হলোঃ

 

# রোগের লক্ষনঃ

১. অনেকেরই কোন লক্ষন প্রকাশ পায় না ।
২. কারন ছাড়াই জ্বর।
৩. মাংসপেশির ব্যাথা।
৪. মাথাব্যাথা।
৫. যোনি থেকে তরল নিঃসরণ।
৬. প্রস্রাবে জ্বালা পোড়া এবং ব্যাথা।
৭. যৌনাঙ্গের আশেপাশে ফোস্কা পড়া।
৮. যৌনাঙ্গের আশেপাশে ক্ষত হওয়া।
৯. ঘা হলে ঘায়ে ব্যাথা হওয়া।

# চিকিৎসাঃ

বর্তমান পর্যন্ত এ রোগের কোন চিকিৎসা পদ্বতি আবিষ্কৃত হয়নি। শুধুমাত্র রোগের তীব্রতা কমাতে Acyclovir, Famciclovir এবং Valacyclovir প্রেসক্রাইব করা হয়।

                                                 পিরিয়ডের পর মিলনে প্রেগনেন্ট হওয়ার সম্ভাবনা কতটুকু?

# রোগের ভয়াবহতাঃ

১. যাদের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা কম তারা এই রোগের ভয়াবহতা বেশি অনুভব করে।
২. এই রোগে আক্রান্ত মায়ের শিশুর ব্রেইনে মারাত্নক ইনফেকশন হতে পারে।
৩. এই রোগে আক্রান্তদের পরেও এইচআইভি এইডস এ আক্রান্ত হওয়ার ঝুঁকি খুব বেশি থাকে।

                                                   মেয়েদের মাসিক চলাকালীন সহবাস করা কি ঠিক?

# প্রতিরোধঃ

১. এই রোগে আক্রান্তদের সাথে সেক্স তো দুরের কথা চুমু খাওয়া এমনকি ছোঁয়াও রোগের কারন হতে পারে।
২. যৌনকর্মীদের কাছে যাবেন না।
৩. একাধিক সেক্স পার্টনার রাখবেন না, নিজের স্বামী/স্ত্রীর সাথে যৌনমিলন করুন।

[ আপনার জীবনে প্রয়োজনীয় নানান সব বিষয়গুলো পেতে আমাদের ফেসবুক পেইজে লইক দিয়ে আমাদের সাথে থাকুন] 

আমাদের ফেসবুক পেইজে লাইক দিতে এইখানে ক্লিক করুন

Updated: April 11, 2016 — 9:44 am
bangladeshi women's lifestyle © 2015-2016, ই-মেইলঃ bdnari.com@gmail.com Serverdokan TEAM