যে প্রকৃতির পুরুষ বিকৃত যৌন রুচিতে আসক্ত!

bdna8874563বিকৃত যৌন রুচি সম্পন্ন একজন সঙ্গীর চাইতে অশান্তির আর কিছুই হতে পারে না জীবনে। একজন ভুক্তভোগী নারীই শুধুমাত্র জানেন একজন বিকৃত রুচির স্বামী বা প্রেমিকের সংস্পর্শ কি ভয়ানক হতে পারে।

শুধু তাই নয়, আজকাল ভয়ানক হারে বাড়ছে ধর্ষণ, শিশুকে যৌন হয়রানি, এমনকি শিশু নির্যাতনের ঘটনাও। আর এসব কাজ করছে আমাদের আশেপাশের একান্ত পরিচিত মানুষগুলোই। নিজেকে নিরাপদ রাখতে কিংবা নিজের সন্তান ও আপনজনদের নিরাপত্তার খাতিরে হলেও বিকৃত রুচির পুরুষদেরকে চিনে রাখা এবং তাদের থেকে পর্যাপ্ত দূরত্ব রক্ষা করা একান্ত জরুরি একটি বিষয়। তাই নিম্নে বিকৃত যৌন রুচির পুরুষ চেনার উপায় আলোচনা করা হলোঃ

* পর্ণোগ্রাফির প্রতি আসক্তি :  প্রত্যেক ছেলেই কমবেশি পর্ণোগ্রাফির প্রতি আসক্ত। এই ব্যাপারটি যদিও সুস্থ রুচির পরিচায়ক নয়, তবু আজকালকার জীবনে কমবেশি সব নারীই ব্যাপারটি মেনে নিয়ে থাকেন স্বামী বা প্রেমিকের ক্ষেত্রে। বিষয়টি চিন্তার হয়ে দাঁড়ায় তখনই, যখন ব্যাপারটা আসক্তির পর্যায়ে চলে যায়। পর্ণোগ্রাফির প্রতি মাত্রাতিরিক্ত আসক্তি, সেখানে দেখানো নকল ব্যাপারগুলো বাস্তব জীবনে প্রয়োগ করতে চাওয়া, পর্ণোগ্রাফির বিশাল কালেকশন ইত্যাদি ব্যাপারগুলো যদি নিজের একান্ত পুরুষ বা বন্ধুদের কারো মাঝে দেখেন তো তাকে এড়িয়ে যাওয়াই সবচাইতে নিরাপদ। এ ধরণের পুরুষদের কাছে পৃথিবীর সকল নারীই পণ্য, এটা সব সময় মাথায় রাখবেন। এ ধরণের পুরুষেরা সারাক্ষণ একটা ফ্যান্টাসির ভেতরে থাকে ও বাস্তবের নারীদেরকে পর্ণস্টারদের সাথে মিলিয়ে ফেলে। এদের দিয়ে সাধারণ নারীদের বিপদের সম্ভাবনাই বেশী।

* কাজের মেয়েদের প্রতি আসক্তি : শুধু বর্তমানে নয়, অতীতেও পুরুষের মাঝে এই ব্যাপারটি ছিল। অনেক স্ত্রীই জানেন কাজের মেয়ের সাথে স্বামীর যৌন সম্পর্কের কথা। কিন্তু নিরুপায় হয়ে চুপচাপ সহ্য করে যান। একটা জিনিস মনে রাখবেন, যৌন চাহিদা মেটাতে যে বাড়ির কাজের মেয়েটির দিকে অনৈতিক ভাবে হাত বাড়ায়, সে অবশ্যই একজন বিকৃত রুচির মানুষ। শুধু কাজের মেয়ে কেন, কোনো আত্মীয়র মেয়েও নিরাপদ নয় এমন পুরুষদের কাছে।

* যৌনকর্মীদের কাছে যাওয়া : যতই মানুষ শারীরিক চাহিদা পূরণ বা অন্যান্য বিষয়ের দোহাই দিক না কেন, যৌনকর্মীদের কাছে যাওয়া মানে এই নির্মম পেশাটাকে এগিয়ে যেতে সাহায্য করা। একজন পরিছন্ন মানসিকতার পুরুষ কখনোই শুধু দেহের চাহিদা মেটানোর জন্য যৌনকর্মীর কাছে যাবেন না। তাই যৌনকর্মীদের কাছে যাতায়াত আছে এমন স্বামী, প্রেমিক বা বন্ধুর কাছ থেকে দূরে থাকাই উত্তম।

* প্রেমের সময়ে জোরপূর্বক শারীরিক সম্পর্ক : অনেক প্রেমিকই এই কাজটা করে থাকেন। প্রেমিকার ইচ্ছা না থাকা সত্ত্বেও বিয়ের পূর্বে মানসিক চাপ প্রয়োগ করে, এমনকি ক্ষেত্র বিশেষে শারীরিক জোর খাটিয়েও প্রেমিকার সাথে শারীরিক সম্পর্কে লিপ্ত হন। এছাড়াও কেবল শারীরিক সম্পর্কের চাহিদা মেটাতে সম্পর্ক করা, সারাক্ষণ শুধু যৌনতা বিষয়ে কথা বলতে চাওয়া, নিরিবিলি একটু সুযোগ পেলেই আপনার মতের বিপক্ষে স্পর্শকাতর অঙ্গে হাত দেওয়া ইত্যাদি সবই একজন বিকৃত যৌন রুচির পুরুষের পরিচায়ক।

[ আপনার জীবনে প্রয়োজনীয় নানান সব বিষয়গুলো পেতে আমাদের ফেসবুক পেইজে লইক দিয়ে আমাদের সাথে থাকুন] 

আমাদের ফেসবুক পেইজে লাইক দিতে এইখানে ক্লিক করুন

Updated: April 13, 2016 — 3:57 pm
bangladeshi women's lifestyle © 2015-2016, ই-মেইলঃ bdnari.com@gmail.com Serverdokan TEAM