প্রেম বা বিয়ে যাই করুন, রাশি দেখে করুন!

bdnari87878747475একেক পরিবার থেকে আসা মানুষ যেমন একেক রকম হয়ে থাকে, তেমনি একেক রাশিতে জন্ম নেওয়া মানুষও কিন্তু একেক রকম হয়ে থাকে। জ্যোতিষীরা বলে থাকেন যে, রাশি ভেদে প্রেমের সম্পর্কে আসে নানান উত্থান পতন। কোনো রাশির সাথে প্রেম হলেও বিয়ে পর্যন্ত যায় না, বিয়ে হলেও হয় সেটা খুবই অশান্তির। আবার কোনো কোনো রাশি আজীবন সুখে-শান্তিতে বসবাস করে। জীবনের বিভিন্ন ক্ষেত্রে, বিশেষত প্রেম ও সম্পর্কের মতো অনিশ্চয়তার ক্ষেত্রে কোন রাশির মানুষ কেমন তা জানাটা আমাদেরকে একটু হলেও স্বস্তি দিতে পারে। আপনি কি জানতে চান আপনার রাশির সাথে অন্য কোন রাশির মানুষের সম্পর্ক কেমন হতে পারে? কোন রাশির সাথে আপনার প্রেমের সম্পর্ক কেমন হবে? তাহলে তা নিম্নে আপনার প্রেমিক/প্রেমিকার রাশি অনুযায়ী জেনে নিনঃ

১. মেষ (মার্চ ২১ – এপ্রিল ১৯): মেষ রাশির সাথে বেশ ভালো বনিবনা হয় মিথুন, সিংহ, ধনু এবং কুম্ভ। প্রেমের জন্য মিথুন এবং কুম্ভ মেষের জন্য অসাধারণ। ক্ষণস্থায়ী বা হালকা ধরণের সম্পর্কের জন্য বেছে নিতে পারেন এই দুই রাশিকে। সিংহের সাথে দীর্ঘস্থায়ী সম্পর্ক গড়ে তোলাটা জীবনে এনে দিতে পারে খুব ইতিবাচক পরিবর্তন। আর যদি আরও দীর্ঘস্থায়ী চিন্তা করতে চান, তবে জীবনসঙ্গী হিসেবে বেছে নিতে পারেন ধনুকে। মেষের থেকে একেবারেই উল্টো প্রকৃতির তুলোও কিন্তু অনেক সময়ে ভালো সঙ্গী হয়ে উঠতে পারে। যদি নিজেদের মাঝে সাধারণ ভিন্নতাগুলো ভুলে যেতে পারেন, তবে তুলা এবং মেষের প্রেম হয়ে উঠতে পারে একেবারেই অসাধারণ। কন্যা এবং বৃশ্চিকের সাথে মেষের প্রেম ভালো হবার সম্ভাবনা ফিফটি-ফিফটি, মানে ভালোখারাপ দুটোই হতে পারে। কর্কট এবং মকরের থেকে একটু দূরে থাকাটাই উত্তম হবে মেষের জন্য।

২. বৃষ (এপ্রিল ২০ – মে ২০): কন্যা রাশির সাথে খুব ভালো জমবে বৃষ রাশির প্রেম। তারা দুজনেই জীবন থেকে একটু শান্তি খোঁজেন, তাই সুখে শান্তিতে ঘর বাঁধতে কোনও সমস্যাই হবে না তাদের। আর জীবনে যদি সফল হয়ে উঠতে চান তবে বেছে নিন মকর সঙ্গী, তিনি আপনাকে ঠেলে ঠেলে কখনো সাফল্যের চুড়ায় পৌঁছে দেবে টেরই পাবেন না! কর্কটের সাথে মিষ্টি একটা প্রেম হতে পারে আপনার, তবে সেটা কতদূর স্থায়ী করবেন সেটা আপনাদের ইচ্ছার ওপরে নির্ভরশীল। দীর্ঘস্থায়ী সম্পর্কের ক্ষেত্রে কর্কট-বৃষ বেশ স্থিতিশীল হতে দেখা যায়। আর মীনের সাথে বৃষের তৈরি হবে সত্যিকারের ভালোবাসা, যা পার করতে পারে সবরকমের বাধা। শুধু তাই নয়, খুব সুন্দর একটা বন্ধুত্বের সূচনা হতে পারে এই দুইয়ের মাঝে। বৃষের ঠিক উল্টো হলো বৃশ্চিক। এর সাথে বৃশ্চিকের প্রেমের পথ কণ্টকিত। খুব চেষ্টা করলেই তবে বৃষ এবং বৃশ্চিকের প্রেম সফল হতে পারে। তুলা এবং ধনুর সাথেও সম্পর্ক গড়ে উঠতে পারে তবে বেশি আশাবাদি না হওয়াই ভালো। আর সিংহের সাথে সম্পর্কে গেলে অযথাই ঝামেলা হতে পারে আপনার।

৩. মিথুন (মে ২১ – জুন ২১): ধনু এবং কুম্ভের সাথে খুব সহজেই মিশতে পারে মিথুন। তবে মেষের সাথে তার সম্পর্কের গাড়ত্ব বেশি হয়। সম্ভাবনা থাকে দীর্ঘমেয়াদী কোনও পরিণতির। হাসিখুশি জীবনের জন্য বেছে নিতে পারেন সিংহ রাশির সঙ্গী। বৃশ্চিকের সাথেও বেশ ভালো সম্পর্ক গড়ে উঠতে পারে মিথুনের। তবে দূরত্ব বজায় রাখুন কর্কট, মকর, কন্যা এবং তুলা রাশির মানুষের থেকে।

৪. কর্কট (জুন ২২ – জুলাই ২২): কর্কট হয়ে থাকে বেশ সংবেদনশীল। তার জন্য মীন এবং বৃশ্চিক রাশির মিল হয় সবচাইতে ভালো। এই দুই রাশি নিজের সঙ্গীর প্রতি যতœশীল থাকে বলে তাদের সাথেই সবচাইতে ভালো থাকে কর্কট। একই কারণে শান্তিপ্রিয় বৃষের সাথেও তার বেশ ভালো মিল হতে দেখা যায়। বিয়ের জন্য এই সবগুলো রাশিই কর্কটের জন্য ভালো। এছাড়া কন্যা রাশিও খারাপ নয়। কর্কট এবং কন্যার সংসারে পারস্পরিক বোঝাপড়া ভালো হতে দেখা যায়। মেষ এবং তুলার সাথে কর্কটের একেবারেই বনে না। প্রেম বা বিয়ে, উভয় ক্ষেত্রেই অশান্তির সম্ভাবনা থাকে।

৫. সিংহ (জুলাই ২৩ – অগাস্ট ২২): সিংহ এমন সবার সাথেই ভালো সম্পর্ক গড়ে তুলতে পারে যারা তার কর্তৃত্ব মেনে চলতে পারে। মেষ এবং ধনু সঙ্গীর সাথে সিংহ জীবনে আরও এগিয়ে যাবার উৎসাহ পায়। আবার তুলা এবং মিথুন রাশির সঙ্গীও তাদের জন্য খারাপ নপ্য, এরা সিংহকে অগ্রাধিকার দিয়ে থাকে। বৃষ রাশির সাথে সিংহের একেবারেই খাপ খায় না, দুজনেই সম্পর্ক থেকে পালাবার পথ খোঁজে। তেমনিভাবে বৃশ্চিক এবং কুম্ভের সাথেও সহজে সম্পর্ক সফল করতে পারে না সিংহ।

৬. কন্যা (অগাস্ট ২৩ – সেপ্টেম্বর ২২): কন্যার সাথে বৃষের ভালো মিল হয়, তেমনি মকরের সাথেও ভালো মিল হতে দেখা যায়। মকরের সাথে বিয়ে কন্যার জন্য শুভ। এতে তেমন চোখ ধাঁধানো কোনও প্রেম কাহিনী তৈরি না হলেও শান্তিপূর্ণ ও সুখী জীবন যাপনের ভালো সম্ভাবনা থাকে। অন্যরকম প্রেমের স্বাদ পেতে চাইলে কর্কট এবং বৃশ্চিক হয়ে উঠতে পারে কন্যার আদর্শ সঙ্গী। মিথুন এবং ধনুর সাথে প্রেমের চেষ্টা না করাই ভালো। কন্যার ঠিক উল্টো রাশি হলো মীন। এর সাথে কন্যার প্রেম সাধারণত সাফল্যের মুখ দেখে না।

৭. তুলা ( সেপ্টেম্বর ২৩ – অক্টোবর ২২): মিথুনের সাথে সম্পর্কে বেশ স্বাচ্ছন্দ্য বোধ করে থাকেন তুলা। এই সম্পর্কে একটা হালকা ভাব থাকে, যা দুজনেরই মনকে করে তোলে ফুরফুরে। কুম্ভের সাথে সম্পর্কেও এই স্বাচ্ছন্দ্য বজায় থাকে। তবে কুম্ভের সাথে থাকলে নতুন নতুন অভিজ্ঞতা যাচাই করে দেখার সাহস পায় তুলা। একটু অন্যরকম প্রকৃতির সিংহ রাশির মানুষের সাথেও তুলার সম্পর্ক বেশ জমে ওঠে। এই জুটির বিবাহিত জীবনও হয় মধুর। ধনুর সাথে তুলার সম্পর্ক হয় একটু অন্যরকম, স্বাভাবিক প্রেমের চাইতে ভিন্ন স্বাদের। মকর এবং কর্কটের আশেপাশে তেমন একটা না ঘেঁষাই ভালো তুলার জন্য। আর তুলার একেবারে উল্টো রাশি হলো মেষ। খুব চেষ্টা করলে এর সাথে আপনার প্রেম হতেও পারে। কিন্তু তা করতে গিয়ে জীবনটা জ্বলে-পুড়ে ধ্বংস হয়ে যাবার সম্ভাবনাই বেশি।

৮. বৃশ্চিক (অক্টোবর ২৩ – নভেম্বর ২১): কর্কট এবং মীন রাশির সাথে খুব ভালো মেলে বৃশ্চিকের। বৃশ্চিকের জীবনে নতুন সম্ভাবনা নিয়ে আসে কর্কট এবং সে কারণে তাকে নিজের জীবনে পাকাপাকি জায়গা দিতেও আগ্রহী হয় বৃশ্চিক। বৃশ্চিকের চরিত্রের সাথে নিজেকে মানিয়ে নিতে পারে বলে মীনের সাথেও স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করে থাকে বৃশ্চিক। এই দুই রাশির সাথে তুলার দীর্ঘস্থায়ী প্রেম এবং বিবাহিত জীবনের সম্ভাবনা ভালো। এছাড়াও শান্তিপ্রিয় কন্যা এবং মকর রাশির সাথেও সম্পর্কে সুখী হয় বৃশ্চিক। সিংহ এবং কুম্ভের সাথে একেবারেই মেলে না বৃশ্চিকের। আর বৃষ রাশির সাথেও সম্পর্কে দেখা যায় টানাপোড়েন।

৯. ধনু (নভেম্বর ২২ – ডিসেম্বর ২১): মেষ এবং সিংহের মতো শক্তিশালী চরিত্রের সঙ্গী পছন্দ করেন ধনু। সিংহের সাথে সম্পর্কে নিজের জীবনের মান উন্নত করতে শেখে ধনু, আর মেষের সাথে সম্পর্কে সে শেখে কি করে আরও স্বাধীন হওয়া যায়। তুলার সাথে মোটামুটি ভালো সম্পর্কে স্থায়ী হতে পারে ধনু। কুম্ভের সাথেও তার তৈরি হতে পারে অদ্ভুত, সাধারনের চাইতে আলাদা এক সম্পর্ক। মেষ এবং কর্কটের সাথে সম্পর্কে ঝামেলা হতে পারে।

১০. মকর ( ডিসেম্বর ২২– জানুয়ারি ১৯): শান্তিপূর্ণ এবং সফল জীবনের জন্য মকরের আদর্শ সঙ্গী হলো কন্যা। একসাথে থাকলে জীবনে অনেক কিছু অর্জন করতে পারবেন তারা। বৃষের সাথেও ভালো বনিবনা হয়ে থাকে তার, তাদের মাঝে বোঝাপড়ার পরিমাণ ভালো। এ ছাড়াও বৃশ্চিক এবং মীনের সাথে ভালো সম্পর্ক গড়ে তুলতে পারেন মকর। তুলা এবং মেষ রাশির সাথে সম্পর্কে না জড়ানোই ভালো। কর্কটের সাথে সম্পর্কে দমবন্ধ হয়ে আসতে পারে মকরের এবং সেই সম্পর্ক টিকে না বেশিদিন।

১১. কুম্ভ (জানুয়ারি ২০ – ফেব্রুয়ারি ১৮): কুম্ভ এবং মিথুন রাশির প্রেমের মুল ভিত্তি হবে বন্ধুত্ব। তারা দুজনেই যথেষ্ট সামাজিক এবং শক্ত একটা বন্ধুত্বের ভিতের ওপর গড়ে উঠতে পারে মিষ্টি এবং দীর্ঘস্থায়ী একটি সম্পর্ক। তুলার সাথেও সহজেই সম্পর্ক গড়ে তুলতে পারবেন কুম্ভ। এই সম্পর্কের ভিত্তি হবে পারস্পরিক বিশ্বাস এবং বোঝাপড়া। ওপর দিকে মেষ এবং সিংহও হতে পারে কুম্ভের ভালো সঙ্গী। আপনার যদি মনে হয়ে থাকে সম্পর্কে একটু দূরত্ব ও স্বাতন্ত্র্য বজায় রাখবেন, তবে ধনু হতে পারে কুম্ভের আদর্শ সঙ্গী। বৃষ এবং বৃশ্চিক এই দুয়ের সাথে সম্পর্কে খাপ খাওয়াতে পারেন না কুম্ভ।

১২. মীন (ফেব্রুয়ারি ১৯ – মার্চ ২০): সুখি বিবাহিত জীবনের লক্ষ্য থাকলে বৃশ্চিক এবং কর্কট উভয় রাশি হয়ে উঠতে পারে মীনের জন্য আদর্শ। যদি তার চাইতেও গভীর প্রেম খুঁজতে চান তবে খুঁজে নিন মকর রাশির সঙ্গী, তার সাথে আপনার মৃত্যুঞ্জয়ী প্রেম গড়ে ওঠা সম্ভব। বৃষ রাশির সাথেও চমৎকার সম্পর্ক গড়ে উঠতে পারে মীনের। সুখী জীবন চাইলে দূরে থাকুন মিথুন এবং ধনুর থেকে।

[ বিঃ দ্রঃ প্রতিদিন মজার মজার রান্নাকরার অসাধারন সব রেসিপি এবং রুপ লাবণ্য টিপস আপনার ফেসবুক টাইমলাইনে পেতে আমাদের পেইজে লাইক দিন!

আমাদের ফেসবুক পেইজে লাইক দিতে এইখানে ক্লিক করুন

Updated: May 21, 2016 — 3:13 pm
bangladeshi women's lifestyle © 2015-2016, ই-মেইলঃ bdnari.com@gmail.com Serverdokan TEAM