জেনে নিন শবেবরাতের ফজিলত ও বরকত!

bdnari22221212152শাবান মাসের ১৪ তারিখ দিবাগত রাত শবেবরাত। মহান আল্লাহ তায়ালা স্বয়ং এ রাতটিকে বরকতময় রাত বলে ঘোষণা করেছেন। কেননা এ রাতে মানবজাতি যাবতীয় গুনাহ থেকে মুক্তি লাভ করে এবং পাপের অশুভ পরিমাণ থেকে রেহাই পায়। বরকতময় রাতের আমলের কথা বিভিন্ন হাদিস দ্বারা প্রমাণিত। হজরত ইবনে আব্বাস (রা.) থেকে বর্ণিত, নিশ্চয়ই শাবানের মধ্যবর্তী রাতে আল্লাহ তায়ালা সব বিষয় ফয়সালা করেন এবং সেগুলো শবেকদরে অধিকারীদের কাছে সম্পন্ন করে থাকেন। (তাফসিরে খাজেন, খণ্ড-৬, পৃ. ১৮৮)।

হজরত আলী (রা.) থেকে বর্ণিত, হজরত নবী করিম (সা.) ইরশাদ করেন, ‘যখন শাবানের ১৫তম রাত আসে, তখন তোমরা ওই রাতে জাগ্রত থেকে মহান আল্লাহপাকের ইবাদত-বন্দেগি করবে ও দিনের বেলায় রোজা রাখবে। কেননা শবেবরাতের রাতে সূর্যাস্তের সঙ্গে সঙ্গে আল্লাহ তায়ালা প্রথম আসমানে তাশরিফ আনেন। অর্থাৎ স্বীয় বান্দাদের অনেক নিকটবর্তী হন। আর বান্দাদের ডেকে ডেকে বলতে থাকেন, ক্ষমা প্রার্থনাকারী কেউ আছ কি? আমার কাছে ক্ষমা প্রার্থনা করো, আমি তোমাদের ক্ষমা করে দেব। রিজিক প্রার্থনাকারী আছ কি? আমি রিজিক দিয়ে দেব। রোগাক্রান্ত কেউ আছ কি? রোগমুক্তির প্রার্থনা করলে আমি শেফা দান করব। এ ধরনের যেকোনো রকমের হাজত থাকলে আমার কাছে দোয়া করো, আমি তোমাদের হাজত পূর্ণ করে দেব। (তিরমিজি শরিফ)।

রাসুলুল্লাহ (সা.) ইরশাদ করেন, যখন রাতের চতুর্থ ভাগ হলো, তখন জিবরাঈল (আ.) আমাকে আবার বললেন, আপনার মাথা মুবারক ওপরের দিকে ওঠান। মহানবী (সা.) তাঁর মাথা মুবারক উঠিয়ে দেখলেন, জান্নাতের আটটি দরজাই খোলা রয়েছে। হজরত নবী করিম (সা.) বললেন, আমি তখন শুনতে পেলাম যে একজন ফেরেশতা বলছে, শুভ সংবাদ এবং খোশখবর ওই ব্যক্তির জন্য, যে ব্যক্তি আজ রাতে রুকু করল।

দ্বিতীয় দরজায় শুনতে পেলাম, ফেরেশতা বলছে, শুভ সংবাদ ওই ব্যক্তির জন্য, যে আজ রাতে সিজদা করল। তৃতীয় দরজায় ফেরেশতা ঘোষণা দিতেছে, শুভ সংবাদ তাদের জন্য, যারা আজ রাতে দোয়া করল! চতুর্থ দরজায় ফেরেশতা ঘোষণা দিচ্ছেথসুসংবাদ তাদের জন্য, যারা আজ রাতে আল্লাহ তায়ালার জিকির করছে। পঞ্চম দরজায় ফেরেশতা ঘোষণা করছে, শুভ সংবাদ তাদের জন্য, যারা আজ রাতে মহান আল্লাহপাকের ভয়ে চোখের পানি ফেলে।

ষষ্ঠ দরজায় ফেরেশতা ঘোষণা করছে, আজ রাত সব উম্মতের জন্য সুসংবাদ। সপ্তম দরজায় ফেরেশতা ঘোষণা করছে, কোনো ক্ষমা প্রার্থনাকারী আছ কি? সে তাঁর জীবনের সব পাপের জন্য লজ্জিত এবং অনুতপ্ত হয়ে ক্ষমা প্রার্থনা করবে। মহানবী (সা.) বলেন, অতঃপর আমি জিবরাঈল (আ.)-কে জিজ্ঞেস করলামথএ দরজাগুলো কতক্ষণ পর্যন্ত খোলা থাকবে? তিনি উত্তর দিলেন, প্রথম রাত থেকে ফজর পর্যন্ত। অতঃপর হজরত জিবরাঈল (আ.) বললেন, হে নবী (সা.)! এই রাতে আল্লাহ তায়ালা বনু কিলাব গোত্রের মেষের পশম পরিমাণ গুনাহগারদের জাহান্নাম থেকে আজাদ করে দেন। (মিশকাত শরিফ ও ইবনে মাজাহ)।

[ বিঃ দ্রঃ প্রতিদিন মজার মজার রান্নাকরার অসাধারন সব রেসিপি এবং রুপ লাবণ্য টিপস আপনার ফেসবুক টাইমলাইনে পেতে আমাদের পেইজে লাইক দিন!

আমাদের ফেসবুক পেইজে লাইক দিতে এইখানে ক্লিক করুন

Updated: May 22, 2016 — 9:27 am
bangladeshi women's lifestyle © 2015-2016, ই-মেইলঃ bdnari.com@gmail.com Serverdokan TEAM