নারী-পুরুষের যৌন বিষয়ে বিজ্ঞানীদের অবাক করা সব তথ্য!

bdnari7768677758আধুনিক বিজ্ঞানীরা যে শুধু যন্ত্রপাতি নিয়েই গবেষনা করছে তা কিন্তু নয়। বর্তমানে বেশ কিছু বিজ্ঞানী দল মানুষের যৌন চাহিদা নিয়ে গবেষণা চালিয়েছেন। এবং তাদেও গবেষণায় বেরিয়ে এসেছে বেশ কিছু মূল্যবান তথ্য। আসুন জেনে নেই সেই গুলো কি কি-

১) ডাক্তাররা বলে নারীরা সন্তান জন্ম দেবার ছয় সপ্তাহ পর থেকে শারীরিক সম্পর্ক স্থাপন নিরাপদ। কিন্তু নারীরা সাধারনত আরো বেশ কিছুদিন অপেক্ষা করেন। একটি গবেষণায় দেখা যায়, ৪১ শতাংশ নারী জন্মদানের ছয় সপ্তাহ পর মিলনে অংশগ্রহণ করেন, ৬৫ শতাংশ নারী করেন আট সপ্তাহ পর। ১২ সপ্তাহের মাঝে ৭৮ শতাংশ এবং ছয় মাসের মাঝে ৯৪ শতাংশ নারী স্বাভাবিক মিলনে অংশ নিতে শুরু করেন।

২) এমন অনেক পুরুষ আছে যারা সারা দিন বাড়িতে থাকে এবং বাড়ির কাজ করে সময় কাটায়। কিন্তু এমন পুরুষের সংখ্যা একটু কম। বিজ্ঞানীদের মতে, বাড়িতে রান্নাবান্না বা বাসনপত্র ধোয়ার কাজ করেন যেসব পুরুষ, তাদের মিলনের ক্ষেত্রে অংশগ্রহণ কম দেখা যায়।

৩) যৌনমিলন মাথাব্যাথা কমায় এটা পুরনো তথ্য। ব্যায়াম এবং মন ভালো করার একটি ভালো উপায় হলো যৌন মিলন, এটা এখন প্রমানিত। কিন্তু মাথা ব্যাথা কমাবে কি করে? মিলনের ফলে মস্তিষ্কে এন্ডর্ফিন নিঃসৃত হয়, যার ফলাফলস্বরূপ মাইগ্রেন জাতীয় মাথাব্যাথার এক তৃতীয়াংশ থেকে মুক্তি পাওয়া সম্ভব হয়।

৪) পুরুষেরাও পিতৃত্ব লাভের পরে পুরুষের যৌনজীবনেও আসে পরিবর্তন। ক্লান্তি, স্ট্রেস এবং বাচ্চার খেয়াল নিতে গিয়ে ঘুম কম হওয়ার মাঝে মিলনে উৎসাহ কমে যায় তাদেরও। সুতরাং বেশ কিছুটা সময় তারা নিরাসক্ত থাকেন।

৫) বিভিন্ন প্রাণীর যৌন জীবন নিয়েও গবেষণা করা হয়। গবেষনায় দেখা যায়, শুধু মানুষেরই নয়, বাদুড়ের মিলনের রয়েছে বৈচিত্র বরং সাধারণ মিলনের পাশাপাশি “ওরাল সেক্স” এ অংশ নেয় বাদুর। মিলনের পূর্বে পুরুষ বাদুড় এভাবে নিজের মুখ ব্যবহার করে, যার জন্য মিলন প্রলম্বিত হয়। তাছাড়া এই প্রক্রিয়ায় নারী বাদুড়ের যৌনাঙ্গ থেকে অন্য পুরুষ বাদুড়ের শুক্রাণু অপসারণের কাজটাও হয়ে যায় বলে মত প্রকাশ করেন গবেষকেরা।

৬) যৌন মিলন পুরুষের ক্ষেত্রে মিনিটে গড়ে ৪.২ ক্যালোরি এবং নারীর ক্ষেত্রে ৩.১ ক্যালোরি ক্ষয় করে যৌন মিলন। সুতরাং এটিকে ব্যায়ামের বিকল্প বলা যায় অর্থাৎ এটা দৌড়ানোর মত ভালো ব্যায়াম না হলেও হাঁটার চাইতে ভালো ব্যায়াম।

৭) তরুণদের যৌনজীবন আসলে তেমন একটা অনৈতিক নয় বিশেষত পাশ্চাত্যের তরুন তরুণীদের ব্যাপারে সবারই ধারণা যে তারা মিলনের ব্যাপারে তেমন একটা বাছবিচার করে না এবং তাদের স্থায়ী কোন সঙ্গী/সঙ্গিনী থাকে না। এই ধারণা অমূলক। ১৮ থেকে ২৫ বছর বয়সীদের মাঝে জরিপ চালিয়ে দেখা যায়, ৩১ শতাংশেরই এর আগের বছরে মাত্র একজন সঙ্গী ছিলো। অর্ধেক মানুষ মত দেয় যে ১৮ বছর বয়সের পরে দুই বা ততোধিক সঙ্গী ছিলো তাদের।

৮) নারীর মিলনে আনন্দের উৎস নিজের প্রেমিক নয়, এমন কারো সাথে মিলনে যথেষ্ট পরিতৃপ্তি পান না নারীরা। অন্য আরেকটি গবেষণায় দেখা যায়, নারীদের অরগ্যাজম বা শীর্ষসুখ সম্ভবত পা থেকে শুরু হয়।

৯) নারীরা জন্মনিয়ন্ত্রণের জন্য পিল ব্যবহার করে থাকেন। এবার এমন একটি পিল আসছে যা পুরুষ গ্রহণ করতে পারবে এবং এতে তার শুক্রাণু নির্গমন বাধাগ্রস্ত হবে এবং গর্ভধারণ প্রক্রিয়া রোধ হবে।

১০) মিলনে হরমোনের প্রভাব শরীরে পরিমাণ এবং উপস্থিতির উপরে মিলনে আগ্রহ অনেকটাই নির্ভর করে। দেখা যায়, নারীদের ওভিউলেশন বা ডিম্বপাতের সময়ে তারা মিলনে বেশি ইচ্ছুক থাকেন। তবে এটা সেসব নারীর জন্য বেশি প্রযোজ্য যারা কোন সম্পর্কে জড়িত নন। যেসব নারী ইতোমধ্যেই সম্পর্কে রয়েছেন বা বিবাহিত, তাদের ক্ষেত্রে মিলনে হরমোনের ভূমিকা কম।

[বিঃ দ্রঃ প্রতিদিন মজার মজার রান্নাকরার অসাধারন সব রেসিপি এবং রুপ লাবণ্য টিপস আপনার ফেসবুক টাইমলাইনে পেতে আমাদের পেইজে লাইক দিন!

আমাদের ফেসবুক পেইজে লাইক দিতে এইখানে ক্লিক করুন

Updated: June 25, 2016 — 7:56 am
bangladeshi women's lifestyle © 2015-2016, ই-মেইলঃ bdnari.com@gmail.com Serverdokan TEAM