প্রসবের যে তিনটি ধাপ অবশ্যই জেনে রাখা দরকার!

একটি দম্পতির কাছে সবচেয়ে সুখকর পর্ব হল গর্ভধারণ। গর্ভবতী মায়েরা প্রসবের দিন এগিয়ে আসার সময়কালে অতিরিক্ত আবেগময় ও হরমোনাল হয়ে পড়েন, এবং এটি একটি স্বাভাবিক অনুভূতি। স্ত্রীরোগ বিশেষজ্ঞের মতে, একটি পূর্ণ মেয়াদ শিশু প্রসব করতে নয়টি পূর্ণ মাস সময় লাগে। এই নয় মাস সন্তানসম্ভবা মা এবং পরিবার দুঃখ সুখে ভরা থাকে। তবে এটি বেদনাদায়ক হয়ে ওঠে যখন প্রসবের সময় ঘনিয়ে আসে। প্রসবের ধাপগুলি কয়েক দিনের মধ্যে ঘটতে পারে আবার কয়েক ঘন্টার মধ্যে, কিছু ভাগ্যবতী মহিলার ক্ষেত্রে কয়েক মিনিটের মধ্যেও ঘটতে পারে। অধিকাংশ নারী যারা প্রাকৃতিকভাবে প্রসবে ইচ্ছুক হন, তাদের এই প্রসবের পর্যায়টি একটি ভয়ানক মুহূর্ত হয়ে ওঠে কিন্তু প্রক্রিয়া শেষে নবজাতকে কোলে নেওয়ার আনন্দটি বহুমূল্যের।

সিজারিয়ান ডেলিভারি বেদনাদায়ক নয় নরমাল ডেলিভারির থেকে, কারণ এতে প্রসবের প্রক্রিয়াটি ভিন্ন। সিজারিয়ান বিভাগে, গর্ভবতী মহিলাকে স্পাইনাল কর্ডে এনেস্থেসিয়ার ইনজেকশন দেওয়া হয়ে থাকে। এনেস্থেশিয়া শরীরের নিচের অংশ অবশ করে দেয়। শিশুকে তারপর অস্ত্রোপচারের মাধ্যমে পনেরো মিনিটের মধ্যে প্রসব করানো হয়। সন্তানসম্ভবা মহিলারা যারা স্বাভাবিক প্রসবের তিনটি পর্ব সম্বন্ধে ওয়াকিবহাল নন, তারা এই নিবন্ধটি বিস্মৃতভাবে জেনে নিন। নিবন্ধটি প্রসবের লক্ষণ ও দৈর্ঘ্য সম্বন্ধে আপনাকে পরামর্শ দেবে।

# প্রসবের লক্ষণ: যখন জরায়ুতে চাপ অনুভব হয়, শক্তির মাত্রার পরিবর্তন হয় এবং রক্তের স্রাব নিঃসরিত হয়, বুঝতে হবে শিশুর প্রসবের সময় হয়ে এসেছে। সংকোচনের সময়টি পর্যবেক্ষণে রাখা গুরুত্বপূর্ণ।

# লেবার এবং ডেলিভারি তিনটি ভাগে বিভক্ত।

# গর্ভাবস্থায় প্রথম পর্যায়ের লেবারের ধাপ : প্রথম পর্যায়ে জরায়ুর সম্পূর্ণ প্রসারণ ঘটে। প্রথম পর্যায়টি আবার তিনটি ভাগে বিভক্ত যেমন প্রাথমিক লেবার, সক্রিয় লেবার এবং পরিবর্তনকালীন লেবার।

* প্রাথমিক লেবার : এটি সবচেয়ে বেদনাদায়ক পর্যায়। এই সময়ে সারভিক্সের তরলীকরণ এবং প্রসারণ হয়ে থাকে। জরায়ুর অন্তত তিন থেকে চার সেন্টিমিটার প্রসারণ হওয়া আবশ্যক। এই প্রাথমিক লেবারের পর্যায়টি, সপ্তাহখানেক, কিছু দিনের জন্য, এমনকি কয়েক ঘন্টার জন্য ঘটতে পারে।

* সক্রিয় লেবার : এই পর্যায়ে সংকোচন এবং ব্যথা শক্তিশালী হয়ে ওঠে এবং জরায়ুর দশ সেন্টিমিটার প্রসারণ ঘটে।

* পরিবর্তনকালীন লেবার : এই সময়ে সংকোচন অনেক শক্তিশালী হয় এবং দুই থেকে তিন মিনিট ব্যবধানে ঘটে। ব্যথা এবং সংকোচন, প্রতিটি পর্যায়ের মধ্যে নব্বই সেকেন্ড পর্যন্ত স্থায়ী হয়।

# গর্ভাবস্থায় দ্বিতীয় পর্যায়ের লেবারের ধাপ : এই ধাপটির জন্য মায়েরা সাগ্রহে অপেক্ষা করে থাকেন। এই পর্যায়ে, জরায়ুর সম্পূর্ণরূপে প্রসারণ ঘটে এবং তখন শিশু গর্ভ থেকে বের হয়ে আসতে প্রস্তুত। এই পর্যায়ে মহিলাদের শান্ত এবং স্বচ্ছন্দ থাকতে হবে, এবং ব্যথা সহ্য করতে হবে (তার যোনিতে সামান্য জ্বালা ও অস্বস্তি অনুভব করতে পারেন যখন শিশুর মাথাটি বাইরে আসার জন্য প্রস্তুত হয়)

# গর্ভাবস্থায় তৃতীয় পর্যায়ের লেবারের ধাপ : শিশুর প্রসবের পর, জরায়ু থেকে গর্ভের ফুলটি অপসারণ করা হয়ে থাকে। কেউ কেউ এই ধাপটিকে দ্বিতীয় শিশু বলে থাকে। এই পর্যায়ে, মহিলারা হালকা সংকোচনের মুখোমুখি হন। গর্ভের ফুলটি জরায়ুর প্রাচীর থেকে নিজেকে আলাদা করে নেয় এবং যোনি থেকে বেরিয়ে আসে। এটা তখন অস্ত্রোপচারের মাধ্যমে কেটে ফেলা হয়।

[ বিঃ দ্রঃ প্রতিদিন মজার মজার রান্নাকরার অসাধারন সব রেসিপি এবং রুপ লাবণ্য টিপস আপনার ফেসবুক টাইমলাইনে পেতে আমাদের পেইজে লাইক দিন!

আমাদের ফেসবুক পেইজে লাইক দিতে এইখানে ক্লিক করুন

Updated: December 27, 2016 — 3:01 pm
bangladeshi women's lifestyle © 2015-2016, ই-মেইলঃ bdnari.com@gmail.com Serverdokan TEAM